বাংলা ট্রিবিউন
২০২৩ সালে ৫১৩ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা, সবচেয়ে বেশি ‘অভিমানে’

২০২৩ সালে ৫১৩ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা, সবচেয়ে বেশি ‘অভিমানে’

২০২৩ সালে সারা দেশে মোট ৫১৩ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে বলে এক সমীক্ষায় জানিয়েছে বেসরকারি সংস্থা আঁচল ফাউন্ডেশন। সংস্থাটি বলছে, এই শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ ছিল ‘অভিমান’; যা সংখ্যায় ১৬৫ জন বা ৩২ দশমিক ২ শতাংশ। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনে ‘২০২৩ সালে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যা: পদক্ষেপ নেওয়ার এখনই সময়’ শীর্ষক সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করে ফাউন্ডেশনটি। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আঁচল ফাউন্ডেশনের একদল গবেষকদের নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমে সংগ্রহকৃত তথ্য-উপাত্ত অনুযায়ী, ২০২৩ সালে আত্মহত্যার পথ বেছে নেওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্কুল পড়ুয়া ২২৭ জন, যা ৪৪ দশমিক ২ শতাংশ; কলেজ শিক্ষার্থী ১৪০ জন, যা ২৭ দশমিক ২ শতাংশ, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ৯৮ জন যা ১৯ দশমিক ১ শতাংশ এবং মাদ্রাসা শিক্ষার্থী রয়েছেন ৪৮ জন যা মোট শিক্ষার্থীর ৯ দশমিক ৪ শতাংশ। আত্মহত্যার কারণের মধ্যে ‘অভিমানের’ পরেই আছে ‘প্রেমঘটিত কারণ’, এ কারণে আত্মহত্যার পরিমাণ ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। এছাড়াও মানসিক সমস্যায় জর্জরিত হয়ে আত্মহননের পথ বেছে নেন ৯ দশমিক ৯ শতাংশ শিক্ষার্থী, পারিবারিক কলহজনিত কারণে ৬ দশমিক ২ শতাংশ, পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেন ১ দশমিক ৪ শতাংশ শিক্ষার্থী। ২০২৩ সালে পড়াশোনার চাপের সম্মুখীন হয়ে আত্মহত্যার দিকে পা বাড়ান ৪ দশমিক ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী, পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ এবং পাবলিক পরীক্ষায় কাঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জনে ব্যর্থ হয়ে বেঁচে থাকার পথ রুদ্ধ করেন ১ দশমিক ৮ শতাংশ শিক্ষার্থী। যৌন হয়রানির শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেন ২ দশমিক ৫ শতাংশ এবং অপমান বোধ করে আত্মহত্যা করেন ০ দশমিক ৮। সমীক্ষার প্রতিবেদন বিভাগভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ঢাকা বিভাগে। এ বিভাগে আত্মহত্যা করেছে ১৪৯ জন শিক্ষার্থী। এরপরই অবস্থান করছে চট্টগ্রাম বিভাগ, এই বিভাগে আত্মহত্যা করেছেন ৮৯ জন। রাজশাহী বিভাগে ৭৭ জন, খুলনা বিভাগে ৬৪ জন, বরিশাল এবং রংপুর উভয় বিভাগেই ৪৩ জন করে, ময়মনসিংহে ৩৬ জন। এছাড়া সিলেটে ১২ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, ঢাকা শহরে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা ও বেড়ে উঠার সহায়ক পরিবেশ না থাকায় এখানে আত্মহত্যার ঘটনা বেশি ঘটছে। সমীক্ষা তথ্য বলছে, আত্মহত্যার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছে নারী শিক্ষার্থীরা। ৫১৩ জন শিক্ষার্থীর ৬০ দশমিক ২ শতাংশ নারী শিক্ষার্থী গত এক বছরে আত্মহত্যা করেছে। শুধু নারী শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার কারণ বিবেচনায় দেখা যায়, ২৮ দশমিক ৮ শতাংশ নারী শিক্ষার্থী অভিমানে, প্রেমঘটিত কারণে ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ, মানসিক ভারসাম্যহীনতার কারণে ৮ দশমিক ৪ শতাংশ, পারিবারিক বিবাদের কারণে ৭ দশমিক ১ শতাংশ, যৌন হয়রানির কারণে ৩ দশমিক ৯ শতাংশ এবং পড়াশোনার চাপজনিত কারণে ৪ দশমিক ২ শতাংশ নারী শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে এবং পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় একই সংখ্যক সংখ্যক শিক্ষার্থী আত্মহননের পথ বেছে নেন। এছাড়া পারিবারিক নির্যাতনে ১ দশমিক ৬ শতাংশ, অপমানে ০ দশমিক ৬ শতাংশ এবং পাবলিক পরীক্ষায় কাঙ্ক্ষিত ফলাফল না পাওয়ার কারণে ২ দশমিক ৯ শতাংশ নারী শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। অনলাইন এ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ (প্রশাসন অনুবিভাগ) অতিরিক্ত সচিব মো. সাইদুর রহমান, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দীন আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এ বি এম নাজমুস সাকিব এবং আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ।
Published on: 2024-01-27 11:06:42.523845 +0100 CET

------------ Previous News ------------