বাংলা ট্রিবিউন
বিরোধী দল কারা হবেন, যা জানালেন ওবায়দুল কাদের

বিরোধী দল কারা হবেন, যা জানালেন ওবায়দুল কাদের

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২২৩টি আসনে জয় নিয়ে বড় ব্যবধানে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে আওয়ামী লীগ। তবে নির্বাচনে অংশ নেওয়া দলগুলোর মধ্যে বর্তমান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি পেয়েছে মাত্র ১১টি আসন। অন্য দিকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আসন পেয়েছেন স্বতন্ত্রপ্রার্থীরা। সারা দেশে ৬২টি আসনে জয় পেয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। তবে তাদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগের নেতা। তাই প্রশ্ন উঠেছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদের বিরোধী দল কারা হবেন? এ নিয়ে জানতে চাইলে নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচনের রেজাল্ট অফিসিয়ালি ঘোষণা হওয়ার পর বিরোধী দল কারা, অলরেডি বিরোধী দল জাতীয় পার্টির তো অনেকেই জিতেছেন, চৌদ্ত দলেরও দুজনের মতো জিতেছেন। এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় তো দূরে নয়। যিনি লিডার অব দ্যা হাউজ হবেন, তিনি এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন। নতুন প্রধানমন্ত্রী, নতুন লিডার অব দ্যা হাউজ পরিস্থিতি, বাস্তবতা, করণীয়... অবশ্যই সিদ্ধান্ত নিবেন। সোমবার (৮ জানুয়ারি) দুপুরে তেজগাঁওয়ে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে কাদের নিয়ে বিরোধী দল করা হবে এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, পদ্ধতিটা আমি কেন আপনাকে বলবো? এটা নতুন সরকার বসুক। সংশ্লিষ্ট যারা আছে তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বৈঠক করবেন। বাস্তবতার নিরিখে সিদ্ধান্ত নেবেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ব্যাপারে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জনগণের প্রতিনিধি, তারা নির্বাচিত। এই নির্বাচিত সদস্য হিসেবেই সংসদে বসবেন তাদের ভূমিকা পালন করবেন। এছাড়া অন্য কিছু এই মুহূর্তে ভাববার অবকাশ নেই। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ২৯৯ এর মধ্যে ২২৩ একা একটা রাজনৈতিক দল জিতেছে। সেখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী কত? অনেকেই মন্তব্য করেছিলেন, আওয়ামী লীগের চেয়ে স্বতন্ত্রই জিতবে বেশি। আওয়ামী লীগ আওয়ামী লীগই। ২২৩ জন রুলিং পার্টি থেকে জেতা এটা তো একটা পজিটিভ বাস্তবতা। বিদেশি সাংবাদিক ও পর্যবেক্ষকদের নিয়ে তিনি বলেন, এটা স্বীকৃতির জন্য নয়, আন্তর্জাতিক বিশ্ব আমাদের ইলেকশনটা কেমন হয় জানতে চায়? আমরা বলেছি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। স্বাধীন নির্বাচন কমিশন ইলেকশন কন্ডাক্ট করবে। আমাদের এই কথার সঙ্গে কাজের মিল আছে কি না গণতান্ত্রিক বিশ্ব সেটা প্রত্যক্ষ করুক, সেজন্য আমরা এটা করেছি। নির্বাচন নিয়ে করা বিএনপির মন্তব্য নজরে আনলে ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশি-বিদেশি সাংবাদিক, পর্যবেক্ষক সবাই নির্বাচন দেখেছেন, প্রত্যক্ষ করেছেন এবং নিজেদের আপনাদের বিবেক আছে। পরিস্থিতি বোঝার ক্ষমতা আছে, নির্বাচনটা কেমন হয়েছে। বিএনপি-জামায়াতের তীব্র বিরোধিতা ও নির্বাচনবিরোধী সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এর মধ্যেও কতটা শান্তিপূর্ণ, সুষ্ঠু ও অবাধ হয়েছে; সেটা আপনারা নিজেরাই প্রত্যক্ষ করেছেন। যা সত্য তা সব কিছুই আপনারা জানেন। আর যা কিছু মিথ্যাচার আপনারা দেখছেন। এখনও তার মিথ্যাচার করে বেড়াচ্ছেন। জনগণের রায়কে অস্বীকার করে তাদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনার হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। আমরা যে কোনও মূল্যে সব ধরনের সহিংসতা, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডকে প্রতিহত করতে, পরাজিত করতে বদ্ধ পরিকর। বিএনপির আন্দোলন নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি কী বলেছে, সেটার উপর তো দেশ চলে না। বিএনপি যেটা বলেছে— সে অনুযায়ী তাদের আন্দোলন করে সরকার হটানো... এটা তো তারা পারেনি করতে। এই নির্বাচনকে হতে দেওয়া যাবে না— এই কথাও তারা বলেছে। নির্বাচন শুধু হতে দেওয়া নয়, নির্বাচন হতে দেবে না, প্রতিহত করবে সবই তো বলেছে, কোনটা সত্য হলো? বলুন?‘
Published on: 2024-01-08 09:47:42.182039 +0100 CET

------------ Previous News ------------