বাংলা ট্রিবিউন
রাজশাহীর ছয়টির মধ্যে ৫ আসনেই নৌকার জয়জয়কার

রাজশাহীর ছয়টির মধ্যে ৫ আসনেই নৌকার জয়জয়কার

একমাত্র বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা ছাড়া রাজশাহীর ছয়টি আসনের পাঁচটিতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। এবার যারা জয়ী হলেন, রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-২ (রাসিক এলাকা) আসনে কাঁচি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে আসাদুজ্জামান আসাদ, রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে আবুল কালাম আজাদ, রাজশাহী-৫ ( পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনে আব্দুল ওয়াদুদ দারা ও রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। রবিবার (৭ জানুয়ারি) রাতে রাজশাহী জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা শামিম আহমেদ বেসরকারিভাবে এই ফলাফল ঘোষণা করেন। রাজশাহী-১ ও রাজশাহী-৬ থেকে টানা চতুর্থবারের মতো বিজয়ী হলেন, ওমর ফারুক চৌধুরী ও শাহরিয়ার আলম। রাজশাহী-৩ ও রাজশাহী-৪ আসনে প্রথমবার নৌকা নিয়ে জয়ী হলেন আসাদুজ্জামান আসাদ ও আবুল কালাম আজাদ। এছাড়া তৃতীয়বারের জয়ী হয়েছেন রাজশাহী-৫ আসন থেকে আবদুল ওয়াদুদ দারা। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ১৪ দল মনোনীত ও ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেনকে পরাজিত করেন শফিকুর রহমান বাদশা। এই আসনে টানা তিন বারের সংসদ ছিলেন ফজলে হোসেন বাদশা। রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী নৌকা প্রতীক নিয়ে জন পেয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৫৯২ ভোট। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম রাব্বানী কাঁচি প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ৯২ হাজার ৪১৯ ভোট। ১১ হাজার ১৭৩ ভোটে ওমর ফারুক চৌধুরী জয়ী। এছাড়াও এমপিপি-এর প্রার্থী আম প্রতীক নিয়ে নুরুন্নেসা পেয়েছেন ২৯৬ ভোট, বাংলাদেশ সংস্কৃতি মুক্তি জোটের প্রার্থী ছড়ি প্রতীকে বশির আহমেদ পেয়ছেন ৩৩৫ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী ঈগল প্রতীক নিয়ে আক্তারুজ্জামান পেয়েছেন ২০২ ভোট, বিএনএফ-এর প্রার্থী টেলিভিশন প্রতীকে আল-সাআদ পেয়েছেন ৬০৩ ভোট। এছাড়া তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী জামাল খান দুদ সোনালী আঁশ প্রতীকে পেয়েছেন ২৭৩ ভোট, বিএনএম প্রার্থী নোঙ্গর প্রতীক নিয়ে শামসুজ্জোহা পেয়েছেন ১ হাজার ৯১১ ভোট, জাতীয় পার্টির প্রার্থী লাঙ্গল প্রতীকে মো. শামসুদ্দীন পেয়েছেন ৯৩৮ ভোট, শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া (মাহি) ট্রাক প্রতীক নিয়ে ভোট পেলেন ৯ হাজার ৯ ভোট, শাহনেওয়াজ আয়েশা আখতার জাহান বেলুন প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৭১৮ ভোট। আসনটিতে মোট বৈধ ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ১২ হাজার ২৯৬ জন। বাতিলকৃত ভোটের সংখ্যা ৭ হাজার ৪৯৭টি। এছাড়া মোট প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ১৯ হাজার ৭৯৩টি। রাজশাহী-২ (রাসিক এলাকা) আসনে ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশাকে ছাপিয়ে শেষ হাসিটা হাসলেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা। ২৩ হাজার ৪৪০ বিপুল ভোটের ব্যবধানে তিনি বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন তিনি। রাজশাহী-২ আসনে কাঁচি প্রতীকের অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা ৫৪ হাজার ৯০৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের ফজলে হোসেন বাদশা পেয়েছেন ৩১ হাজার ৪৬৬ ভোট। এছাড়াও অন্য প্রার্থীগুলোর মধ্যে ভোট পেয়েছেন, জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাইফুল ইসলাম স্বপন ১ হাজার ৮২৬, জাসদ প্রার্থী আবদুল্লাহ আল মাসুদ শিবলী ১ হাজার ৫৪, মুক্তিজোট প্রার্থী ইয়াসির আলিফ বিন হাবিব ৩০৮, বাংলাদেশ কংগ্রেস প্রার্থী মারুফ শাহরিয়ার ৪০৭ ও বিএনএম প্রার্থী কামরুল হাসান ২২৩। এই আসনে মোট ২৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ ভোট পড়েছে। রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে জয় পেয়েছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদ। তিনি ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৫৪ হাজার ৯০৯টি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লাঙ্গল প্রতীকের আব্দুস সালাম খান পেয়েছে ৫ হাজার ২৭৪ ভোট। রাজশাহী-৩ আসনটি থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৬৩৫ বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদ। এছাড়া  নোঙ্গর প্রতীকের প্রার্থী একেএম মতিউর রহমান পেয়েছেন ৩ হাজার ৫২৪ ভোট। বজলুর রহমান টেলিভিশন প্রতীকে পেয়েছেন ৮২৯ ভোট, ছড়ি প্রতীকের এনামূল হক পেয়েছেন ৮০৭ ভোট, আম প্রতীকের সইবুর রহমান পেয়েছেন ৯০৪ ভোট। রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ বেসরকারিভাবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৭ হাজার ৬৫ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাঁচি প্রতীকের বর্তমান সংসদ সদস্য এনামুল হক পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৫৬১ ভোট। পার্থক্য ৫৩ হাজার ৫০৪ ভোটে আবুল কালাম জয়ী। এছাড়াও জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের আবু তালেব ১ হাজার ৫১৮ ভোট, এনপিপি প্রার্থী জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না আম প্রতীকে পেয়েছেন ৫৬০ ভোট, বিএনএম প্রার্থী সাইফুল ইসলাম রায়হান নোঙ্গর প্রতীকে পেয়েছেন ১৪৯ ভোট এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী বাবুল হোসেন মাথাল প্রতীকে পেয়েছেন ৮৭০ ভোট। রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনে ১৩২টি কেন্দ্রের ফলাফলে জয় পেয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল ওয়াদুদ দারা। তিনি পেয়েছেন ৮৬ হাজার ৯১৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ওবায়দুর রহমান পেয়েছেন ৮৩ হাজার ৮৬২ ভোট। ৩ হাজার ৫১ ভোটে আব্দুল ওয়াদুদ দারা জয়ী। এছাড়া জাতীয় পার্টির আবুল হোসেন লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৫৩১ ভোট। বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির প্রার্থী আলতাফ হোসেন মোল্লা একতারা প্রতীকে পেয়েছেন ৪৪০ ভোট। গণফ্রন্টের মখলেসুর রহমান মাছ প্রতীকে পেয়েছেন ৩২৩ ভোট। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের প্রার্থী শরিফুল ইসলাম নোঙ্গর প্রতীকে পেয়েছেন ৩৬৪ ভোট। রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনে জয়ী হয়েছেন শাহরিয়ার আলম। ১১৮টি কেন্দ্রে তিনি ১ লাখ ১ হাজার ৫৯৯ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী রাহেনুল হক পেয়েছেন ৭৪ হাজার ২৭৮। ২৪ হাজার ৮০৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন শাহরিয়ার আলম।
Published on: 2024-01-08 06:25:21.974603 +0100 CET

------------ Previous News ------------