বাংলা ট্রিবিউন
নীতিমালা না মেনেই আইডিয়ালে গভর্নিং বডির নির্বাচনের আয়োজন

নীতিমালা না মেনেই আইডিয়ালে গভর্নিং বডির নির্বাচনের আয়োজন

২০২২ সালের ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন, পাঠদান ও অ্যাকাডেমিক স্বীকৃতি নীতিমালা’ না মেনে গভর্নিং বডির নির্বাচন করতে যাচ্ছে রাজধানীর মতিঝিলের আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ। মূল ক্যাম্পাসের অধীনে সব শাখা কম্পাস নিয়ন্ত্রণে রেখে আগের মতোই দুর্নীতির সুযোগ তৈরি করতে নির্বাচনের আয়োজন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ১৯ মার্চ ঢাকার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে নির্বাচনি তফসিল ঘোষণা করা হয়। তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র বিতরণ ও জমা ২০, ২১ ও ২৪ মার্চ। মনোনয়নপত্র বাছাই ২৫ মার্চ এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ২৭ মার্চ। আর আগামী ১৯ এপ্রিল সকাল ১০টা থেকে একটানা বিকাল চারটা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। তফসিলে জানানো হয়, ‘মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা ২০০৯’-এর প্রবিধান ১৬ অনুযায়ী আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হলো। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, সব ক্যাম্পাসের জন্য একটি গভর্নিং বডির নির্বাচন আয়োজন করা হয়েছে। কিন্তু ২০২২ সালের ৩০ নভেম্বর মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুযায়ী অনুমোদিত সব শাখা ক্যাম্পাস আলাদা আলাদা গভর্নিং বডি গঠন করতে হবে’। নীতিমালার ১০ ধারায় বলা হয়েছে, স্বতন্ত্র ইআইআইএন গ্রহণ করতে হবে; প্রতিটি ক্যাম্পাস অথবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শাখার সঙ্গে ক্যাম্পাসের স্থান উল্লেখ করতে হবে, প্রতিটি ক্যাম্পাস অথবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শাখার জন্য পৃথক জনবল কাঠামো এবং ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করতে হবে। এই আইন না মেনে সব শাখা ক্যাম্পাসকে মূল ক্যাম্পাসের অধীনে রেখে নিয়োগ-দুর্নীতির মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা অর্থ আত্মসাৎ ও লোপাট করেছে গভর্নিং বডি। পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদফতরের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিষয়টি নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে। তারপরও মন্ত্রণালয়ের করা নীতিমালা না মেনে নির্বাচনের আয়োজন করা হয়েছে। এর আগে সরকারের একজন সচিব প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি থাকাকালেও শাখা ক্যাম্পাসকে আলাদা করা কিংবা আলাদা গভর্নিং বডির গঠন করার উদ্যোগ নেননি। এরপর নতুন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবকে গভর্নিং বডির সভাপতি করা হয়েছে। গভর্নিং বডির নতুন সভাপতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক অনুবিভাগ-২) মো. রবিউল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘দীর্ঘদিন থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি শাখা ক্যাম্পাসসহ একটি গভর্নিং বডি দিয়ে চলছে। যদি শাখা কম্পাসগুলো আলাদা হয় তাহলে আলাদা গভর্নিং বডি গঠন করা হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিগত সময়ের দুর্নীতির চিত্র পাল্টে নতুন সভাপতি প্রতিষ্ঠানটিকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। এরই মধ্যে গভর্নিং বডির নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টার অংশ হিসেবে ‘পকেট কমিটি’ গঠনের চেষ্টা চালাচ্ছেন কেউ কেউ। অভিযোগ উঠেছে ভোটার তালিকায় নাম রয়েছে এমন একজনকে মনোনয়ন ফরম দেওয়া হচ্ছে না। জানতে চাইলে আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এমাম হোসেন বলেন, ‘সব শাখা নিয়ে গভর্নিং বডি গঠনে নির্বাচনের তফসিল গঠন করা হয়েছে।’ তবে অভিযোগ প্রসঙ্গে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কোনও জবাব দেননি। অভিভাবক ঐক্য ফোরামের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউল কবির দুলু বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালা মেনে শাখা ক্যাম্পাসগুলোকে আলাদা করতে হবে, আলাদা গভর্নিং বডি গঠনের ব্যবস্থা নিতে হবে। যে তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে সেই তফসিল স্থগিত করে নতুন করে আলাদা ভোটার তালিকা তৈরি করে নির্বাচন করতে হবে। সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সভাপতি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালা বাস্তবায়ন করার এখনই সুযোগ। মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও মনিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজ— এই তিনটি প্রতিষ্ঠানে সভাপতিরা সরকারের লোক, তারা কেন সরকারের নীতিমালা বাস্তবায়ন করতে পারবে না।
Published on: 2024-03-22 19:02:33.422292 +0100 CET

------------ Previous News ------------