বাংলা ট্রিবিউন
ছাত্রদল নেতা হত্যা: আ.লীগ নেতাসহ ১৪ জনের যাবজ্জীবন

ছাত্রদল নেতা হত্যা: আ.লীগ নেতাসহ ১৪ জনের যাবজ্জীবন

কুমিল্লায় ছাত্রদল নেতা হত্যার দায়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৪ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার সময় ১১ আসামি উপস্থিত থাকলেও পলাতক ছিলেন তিন জন। সোমবার (২২ এপ্রিল) কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক নাসরিন জাহান এই রায় দেন। বাংলা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন মামলার আইনজীবী মো. শরীফুল ইসলাম। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- কালিবাজার এলাকার হাজী মো. আব্দুর রহমানের ছেলে, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. সেকান্দর আলী, আব্দুল লতিফের ছেলে ও যুবলীগ নেতা মো. শাহীন, আব্দুস সাত্তারের ছেলে ও স্থানীয় যুবলীগ নেতা মো. সাদ্দাম হোসেন, মো. মোজাম্মেল হক ওরপে মূসার ছেলে মো. ও ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, আহম আলীর ছেলে মফিজ ভান্ডারী, জয়নাল মাস্টারের ছেলে মো. কাওছার (পলাতক), মনির হোসেনের ছেলে মো. রিয়াজ রিয়াদ (পলাতক), শফিক মেম্বারের ছেলে বিল্লাল (পলাতক), আব্দুর রহমান ডিলারের ছেলে মো. কামাল হোসেন, হারুন অর রশিদের ছেলে আব্দুল কাদের, আব্দুল ওহেদের ছেলে মো. ইব্রাহীম খলিল, আশ্রাফ আলীর ছেলে আনোয়ার, ইমদাদুল হক জুরুর ছেলে মো. মেহেদী হাসান রুবেল এবং হাজী সিরাজুল ইসলামের ছেলে জয়নাল আবেদীন। আসামিদের প্রত্যেককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও পাঁচ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। নিহত ছাত্রদল নেতা মো. পারভেজ হোসেন কালীরবাজার ইউনিয়ন ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক। আইনজীবী শরীফুল জানান, ২০২০ সালের ১০ জুন সন্ধ্যায় কমলাপুর বাজারের দক্ষিণ পাশে পারভেজকে আটক করে মারধর করে সিকান্দার চেয়ারম্যান ও তার লোকজন। এ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত তাকে আটক করে এলোপাতাড়ি মারধর করে গুরুতর আহত করে। যে কারণে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় কুমিল্লার কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই মাহবুবুর রহমান বাদী হয়ে ১৫০ অজ্ঞাত আসামির বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। পরে নিহতের মাও বাদী হয়ে মামলা করেন। এ ঘটনায় তদন্ত করে সিআইডি ১৪ জনকে আসামি করে প্রতিবেদন দেয়। পরে এক আসামি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি ও ৩০ সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত এই রায় দেন।
Published on: 2024-04-22 16:37:04.291713 +0200 CEST

------------ Previous News ------------