ঢাকাট্রিবিউন
বিনা প্রশ্নে কালো টাকা আবাসনে বিনিয়োগের সুযোগ চায় রিহ্যাব

বিনা প্রশ্নে কালো টাকা আবাসনে বিনিয়োগের সুযোগ চায় রিহ্যাব

আবাসন খাতে আগামী ১০ বছরের জন্য বিনা প্রশ্নে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব)। পাশাপাশি এই খাতের ক্রেতাদের ফ্ল্যাট ক্রয়ের ক্ষেত্রে অর্থের উৎস সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন না করারও আহ্বান জানিয়েছে। রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে রাজস্ব ভবনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড আয়োজিত প্রাক বাজেট সভায় রিহ্যাব এ প্রস্তাবনা তুলে ধরে। রিহ্যাবের প্রশাসক জান্নাতুল ফেরদৌস এনবিআরের কাছে প্রস্তাবমালা পেশ করেন। এ প্রস্তাবের যৌক্তিকতা সম্পর্কে রিহ্যাব বলেছে, কোনো কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের প্রশ্ন উত্থাপন করবে না-এই সুবিধাসহ আয়কর অধ্যাদেশ ১৯ বিবিবিবিবি অবিলম্বে পুনঃপ্রবর্তন করা না হলে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার হওয়ার ধারা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে। রিহ্যাব মনে করছে, বর্তমানে বিভিন্ন দেশে ‘‘সেকেন্ড হোম’’ গ্রহণের সুযোগ থাকায় দেশের প্রচুর অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে, এসব দেশে ফ্ল্যাট বা অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয়ের অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয় না। অপ্রদর্শিত অর্থ দেশে বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়া হলে ভবিষ্যতে এই বিনিয়োগকারীরা করজালের আওতায় চলে আসবেন, এতে সরকারের রাজস্ব আয় বাড়বে। প্রস্তাবে রিহ্যাব বলেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়ার ফলে সরকার ২ হাজার ৬৫ কোটি টাকা রাজস্ব পেয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীকালে এই খাতে রাজস্ব আদায় অনেকটা কমে যায়। এ ছাড়া ফ্ল্যাট ও প্লট নিবন্ধন মাশুল ও কর হ্রাসের প্রস্তাব দিয়েছে রিহ্যাব। বর্তমানে ফ্ল্যাট ও প্লটের মোট নিবন্ধন ব্যয় ১০ থেকে ১২ দশমিক ৫ শতাংশ পর্যন্ত উঠে যায়; রিহ্যাব এটা ৭ শতাংশের মধ্যে নামিয়ে আনার প্রস্তাব দিয়েছে।
Published on: 2024-02-12 15:24:44.137737 +0100 CET