ইত্তেফাক
ভোটের প্রস্তুতি নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আজ সাক্ষাৎ করবে ইসি

ভোটের প্রস্তুতি নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আজ সাক্ষাৎ করবে ইসি

*দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তপসিল ঘোষণার আগে রেওয়াজ অনুযায়ী এ নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে জানাতে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনের সঙ্গে দেখা করবেন নির্বাচন কমিশনাররা। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় বঙ্গভবনে ঐ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হবে। কমিশন মনে করছে, নির্বাচনের তপসিল ঘোষণার জন্য পরিবেশ অনুকূল। যদিও গত ৪ নভেম্বর রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আয়োজিত বৈঠকে অধিকাংশ দল বলেছিল, নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নিয়ে শঙ্কা আছে। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের পর আগামী সপ্তাহে তপসিল ঘোষণা করবে কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন।* ইসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ধারণা, আগামী ১৩ থেকে ১৫ নভেম্বরের মধ্যে দেশবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল এ তপসিল ঘোষণা করতে পারেন। ১৩ নভেম্বর বেলা ২টায়  খুলনা সার্কিট হাউজ ময়দানে আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে ভাষণ দেবেন দলের সভাপতি ও  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঐ জনসভায় তিনি ২৪টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। এ অবস্থায় নির্বাচনি আচরণবিধির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে নির্বাচন কমিশন ১৪ নভেম্বর তপসিল ঘোষণা করতে পারে। আবার কারো ধারণা, সংসদ নির্বাচনের তপসিল ঘোষণা হয় সন্ধ্যার দিকে। সেক্ষেত্রে ১৩ নভেম্বরও তপসিল ঘোষণা হতে পারে। নির্বাচন কমিশনাররা আগেই জানিয়ে রেখেছেন, নভেম্বরের প্রথমার্ধে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তপসিল ঘোষণা করা হবে। এক্ষেত্রে ৬ জানুয়ারি থেকে ১১ জানুয়ারির মধ্যে ভোট করার পরিকল্পনা রয়েছে কমিশনের। গতকাল বুধবার নির্বাচন কমিশনাররা সিইসির কার্যালয়ে অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করেন। পরে একজন নির্বাচন কমিশনারের কার্যালয়ে তিন জন নির্বাচন কমিশনার আলোচনায় বসেন। এসব বৈঠকে আলোচনার বিষয় নিয়ে নির্বাচন কমিশনারদের কেউ কোনো কথা বলতে চাননি। গত কয়েক দিন ধরে নির্বাচন কমিশনের অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে ইসি সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিও সীমিত করা করা হয়েছে। *‘তপসিল ঘোষণার পরিবেশ আছে’* ইসি সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, ‘দেশে সম্পূর্ণরূপে নির্বাচনের তপসিল ঘোষণার মতো অনুকূল পরিবেশ রয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন আয়োজনে ইসি বদ্ধপরিকর।’ গতকাল ইসি সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। ইসি সচিব বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অত্যাসন্ন। সংবিধান অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচনের আয়োজন করতে হবে। রেওয়াজ অনুযায়ী তপসিল ঘোষণার আগে কমিশন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে। সাক্ষাতে রাষ্ট্রপতিকে নির্বাচন প্রস্তুতি সংক্রান্ত সব ধরনের অগ্রগতির বিষয়ে অবহিত করা হবে। প্রস্তুতি নিয়ে রাষ্ট্রপতির পরামর্শ ও নির্দেশনা থাকলে তা কমিশন শুনবে। তপসিল ঘোষণা কবে হতে পারে—এ প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘কমিশন বারবার বলেছে যে, নভেম্বর মাসের দ্বিতীয়ার্ধের যে কোনো দিন তপসিল ঘোষণা হতে পারে। কমিশনের যে সব প্রস্তুতিমূলক কাজ রয়েছে, তার সবই সম্পন্ন হওয়ার পথে। নির্বাচনি মালামালও ধাপে ধাপে জেলা পর্যায়ে পাঠানো হচ্ছে।’ নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েনের ব্যাপারে সচিব বলেন, নির্বাচনে পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মাঠে থাকবেন। ভোটাররা নির্বিঘ্নে যাতে ভোট দিতে পারে, সে বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরিপত্র জারি করবে এবং সেভাবে মন্ত্রণালয় কাজ করবে। *পর্যবেক্ষণে তিন আন্তর্জাতিক সংস্থার ইচ্ছা প্রকাশ* ইসি সচিবালয়ের জনসংযোগ শাখার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশনের আহ্বানে সাড়া দিয়ে এ পর্যন্ত তিনটি আন্তর্জাতিক সংস্থা—ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, কমনওয়েলথ ও এনডিআই (ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনস্টিটিউট) সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। এসব সংস্থার মধ্যে কমনওয়েলথের প্রাক-নির্বাচনি মূল্যায়ন দল আগামী ১৯ নভেম্বর নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সভা করবে। অন্য ?দুটি সংস্থার প্রাক-নির্বাচনি মূল্যায়ন দল ইতিমধ্যেই বাংলাদেশে এসেছে এবং নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সভা করেছে।
Published on: 2023-11-08 22:09:36.083083 +0100 CET