ইত্তেফাক
ডিএসইতে ইতিবাচক রিটার্নের শীর্ষে ভ্রমণ, তথ্যপ্রযুক্তি, বিবিধ ও ব্যাংক খাত

ডিএসইতে ইতিবাচক রিটার্নের শীর্ষে ভ্রমণ, তথ্যপ্রযুক্তি, বিবিধ ও ব্যাংক খাত

*দেশের প্রধান শেয়ার বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বিদায়ি সপ্তাহে মূল্যসূচক কমেছে। এছাড়া, লেনদেনের পাশাপাশি এই বাজারে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারদরও কমেছে। অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক কমলেও লেনদেন বেড়েছে।* বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছে, বিদায়ি সপ্তাহে অনেক বিনিয়োগকারী শেয়ার বিক্রি করে মুনাফা কা তুলেছেন। ফলে দরপতন হয়েছে। তবে অনেক 'মন্দ' ও বন্ধ কোম্পানির শেয়ারদর হুহু করে বাড়ছে। এসব শেয়ার থেকে বিনিয়োগকারীদের দূরে থাকতে পরামর্শ দিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত সপ্তাহে ডিএসইএক্স আগের সপ্তাহের তুলনায় ৩৭ দশমিক ১০ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৩৩৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া, ডিএস-৩০ সূচক ১৮ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ১৫৭ পয়েন্টে ও শরিয়াহ সূচক ডিএসইএস ৫ দশমিক ১১ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৮২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। গত সপ্তাহে এই বাজারে প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৪৮৮ কোটি ৭ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ১ হাজার ৬৯৫ কোটি ৪ লাখ টাকা। সপ্তাহ জুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৭ হাজার ৪৪০ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে মোট লেনদেন হয় ৮ হাজার ৪৭৫ কোটি ২০ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন কমেছে ১ হাজার ৩৪ কোটি ৮১ লাখ টাকা বা ১২ দশমিক ২১ শতাংশ। ডিএসইতে গত সপ্তাহে লেনদেনকৃত মোট ৪০৯টি কোম্পানি, মিউচুয়াল ফান্ড ও করপোরেট বন্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৩টির, কমেছে ৩০৯টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টির দর। এছাড়া লেনদেন হয়নি ১১টির। এদিকে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারদর কমায় গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৬৬ হাজার ৪৬৬ কোটি টাকা। যা আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৭ লাখ ৭২ হাজার ৫২৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ৬ হাজার ৬০ কোটি টাকা। দেশের প্রধান এই শেয়ার বাজারে গত সপ্তাহে লেনদেনের ভিত্তিতে শীর্ষ ১০টি কোম্পানি হলো: বেস্ট হোল্ডিংস, ওরিয়ন ইনফিউশন, ওরিয়ন ফার্মা, ফরচুন সুজ, আইএফআইসি ব্যাংক, ফু-ওয়াং সিরামিক, মালেক স্পিনিং, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন এবং আইটি কনসালটেন্টস। বিদায়ি সপ্তাহে ডিএসইতে ইতিবাচক রিটার্নের দিক থেকে শীর্ষে ছিল ভ্রমণ, তথ্যপ্রযুক্তি, বিবিধ ও ব্যাংক খাত। এ চার খাতে যথাক্রমে ১১ দশমিক ২ শতাংশ, ১ দশমিক ১ শতাংশ, দশমিক ৮ শতাংশ ও দশমিক ৭ শতাংশ ইতিবাচক রিটার্ন এসেছে। অন্যদিকে নেতিবাচক রিটার্নে শীর্ষে ছিল পাট, প্রকৌশল, কাগজ ও বস্ত্র খাত। খাতগুলোয় যথাক্রমে ৫ দশমিক ৪ শতাংশ, ৫ দশমিক ৩ শতাংশ, ৫ দশমিক ১ শতাংশ ও ৪ দশমিক ১ শতাংশ নেতিবাচক রিটার্ন এসেছে। অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গত সপ্তাহে সার্বিক সূচক সিএএসপিআই দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ কমে ১৮ হাজার ২৯১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হয়েছে ১৫৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। তার আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১২৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা। বিদায়ি সপ্তাহে সিএসইতে লেনদেনকৃত মোট ৩৫২টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১০১টির, কমেছে ২২৫টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির দর।
Published on: 2024-02-17 22:12:59.340481 +0100 CET