যায়যায়দিন
তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে কারও সঙ্গে কথা হয়নি : প্রধানমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে কারও সঙ্গে কথা হয়নি : প্রধানমন্ত্রী

*প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র সফরে তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে কারও সঙ্গে কথা হয়নি। আমার মনে পড়ে না, এ ধরনের কোনো কথা হয়নি। কেউ জিজ্ঞেসও করেনি। ২০০৭ এ তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে যে অভিজ্ঞতা, এরপর এটা কেউ চায়?’* আজ শুক্রবার বিকেলে ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা তো বারবার তারিখ দিয়েই যাচ্ছে। এই তারিখে ফেলে দেবে, ওই তারিখে ফেলে দেবে। তারা আন্দোলন করুক। জনগণের জানমালের কোনো ক্ষতি যদি করা হয়, সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নেবে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের আন্দোলনে বাধা দিচ্ছি না। তারা আন্দোলন লোকসমাগম করছে। খুব ভালো কথা। এতকাল চুরি করে যা টাকা বানিয়ে ছিল আর যে টাকা মানি লন্ডারিং করে ছিল, সেগুলো ব্যবহার হচ্ছে। অন্তত মানুষের প্যাকেটে কিছু টাকা তো যাচ্ছে।’ নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) ৭৮তম অধিবেশনে যোগদানের ফলাফল সম্পর্কে গণমাধ্যমকে অবহিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে ১৬ দিনের সরকারি সফর শেষে বুধবার দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী। এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, 'আমি দেশবাসীকে এইটুকু বলব, সবাই নিজের ঘরবাড়ি পরিষ্কার রাখেন। মশারি টানিয়ে ঘুমান, এখন তো ফ্যাশন হয়ে গেছে কেউ মশারি টানায় না। অথচ মশারি টানানো একান্ত দরকার। খালি ওষুধ দিয়ে দিয়ে আর ওই ওষুধ দিতে দিতে মশাও চালাক হয়ে যায়, সেও ওই ওষুধ সহ্য করে ফেলে। সেজন্য প্রত্যেকের মশারি টানানো উচিত। ঘর থেকে বের হলে যেন কমোডের ঢাকনাটা ঢেকে দেওয়া। কোথাও কোনো পানি পড়ে আছে কি না সেটা দেখা, ছাদে টবে বা কোথাও পানি আছে কি না সেগুলি ফেলে দেওয়া, পানি যেন জমে থাকতে না পারে সেটা দেখা। শুধু নিজের ঘরবাড়ি না, ছাদ থেকে শুরু করে আশেপাশের অঞ্চলেও প্রত্যেকটা এলাকাভিত্তিক সবাই যদি একটু উদ্যোগ নেয় তাহলে কিন্তু ডেঙ্গুর প্রভাব থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এটা হলো বাস্তবতা।' শেখ হাসিনা বলেন, 'বিভিন্ন সিজনে বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এখানে কিন্তু প্রত্যেকের নিজেদের সচেতন হতে হবে। নিজের ঘরবাড়ি পরিষ্কার রাখা, কোথায় মশাটা জন্মাচ্ছে সেই জিনিসটা দেখা। শুধু নিজের ঘরে না, নিজের ঘরের বাইরেও রাস্তায় বা আশেপাশে পাড়া-প্রতিবেশি মিলেই কিন্তু মশার প্রজনন ক্ষেত্রগুলি যেন তৈরি হতে না পারে এ ব্যাপারে সবার কিন্তু দায়িত্ব থাকতে হবে। আমাদের সরকারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে অবশ্যই প্রচেষ্টা আছে, প্রচেষ্টা চলছে। গবেষণাও চলছে। ইতোমধ্যে শুনলাম জাপান নাকি একটা টিকা আবিষ্কার করেছে। এগুলি তো আসলে সময়সাপেক্ষ। তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু দেখা দিয়েছে সবাই সাবধানে থাকেন এটাই তো সবচেয়ে বড় কথা। বারবার তো টেলিভিশনে সবখানে বলা হচ্ছে। সারাক্ষণ কিন্তু আমরা প্রচার করে যাচ্ছি। এখন মানুষ কতটুকু সচেতন সেটা হলো বড় কথা। গাড়ির টায়ার যেখানে পড়ে থাকে সেগুলোও আমরা খোঁজ নিয়েছি। কোনো একটা জিনিস পড়ে থাকলে সেখানে গিয়ে মশা জমা হয়, পানি থাকলে মশা জমা হয়। আমাদের আসলে জাতিগতভাবে একটু সচেতনতা নিজেদের সৃষ্টি করা দরকার। এটা খুব দুঃখজনক এত মানুষ ডেঙ্গুতে মারা যাচ্ছে। তবে আমাদের পক্ষ থেকে যা যা করণীয় সব তো করে যাচ্ছি।’ যাযাদি/ এসএম
Published on: 2023-10-06 16:19:10.249407 +0200 CEST