যায়যায়দিন
জনগণ দেশের উন্নয়ন চাইলে আ.লীগকে ভোট দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনগণ দেশের উন্নয়ন চাইলে আ.লীগকে ভোট দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

জনগণ দেশের উন্নয়ন চাইলে আওয়ামী লীগকে ভোট দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ রোববার (৬ আগস্ট) সকালে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের ‘বিশেষ বর্ধিত সভায়’ এ মন্তব্য করেন। আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ওয়ান-ইলেভেন প্রসঙ্গটি এনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির দুর্নীতি ও দুঃশাসনের কারণেই ওয়ান-ইলেভেন হয়েছিল। খালেদা জিয়া ভোটচোর হিসেবে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয়েছিল। সভায় ২০০১ সালের নির্বাচনে ষড়যন্ত্রের কারণে আওয়ামী লীগ হেরেছে বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। বলেন, গ্যাস বিক্রি করতে রাজি না হওয়ায় এবং দেশি-বিদেশি নানা চক্রান্তের কারণে ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসতে পারেনি আওয়ামী লীগ। সামালোচকদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রেখে সরকারপ্রধান বলেন, ‘বাংলাদেশের দারিদ্র্য বিমোচন আগে হলো না কেন? আওয়ামী লীগ ২০০৯ সালে সরকার গঠন করে ২০২৩ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্র পরিচালনা করেই আজ আমরা দারিদ্রের হার ১৮% এ নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। আমি অর্থনীতিবিদদের কাছে জিজ্ঞাসা করি- ১৮ ভাগ দারিদ্রের হার আগে কেন হয়নি? তারা কোন অঙ্কের হিসেব করেন? ২০০৯ এর আগে কি এই পরিমান দারিদ্র বিমোচন হয়েছে? তা তো হয়নি। হলো কেন? তার কারণ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রতিটি কর্মসূচি, পতিটি পদক্ষেপ গণমুখী। জনগণকে দারিদ্রমুক্ত করা, জনগণের শিক্ষার হার বাড়ানো, স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া, কর্মসংস্থানের জন্য বেসরকারি খাত উন্মুক্ত করে দেওয়া, তৃণমূল পর্যায়ে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের ফলেই এই দারিদ্রের হার হ্রাস পেয়েছে। কোন ক্ষুদ্র ঋণ দিয়ে দারিদ্রের হার হ্রাস হয়নি।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘স্বাধীনতার পরে একটা চক্রান্ত শুরু হয়। সেই চক্রান্তে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিদের হত্যা করা হয়। ২১ বছর আমাদের শুধু আহতদের চিকিৎসা ও লাশ টানতে হয়েছে।’ অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ ও উপ-প্রচার সম্পাদক আবদুল আউয়াল শামীম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বিশেষ বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটি, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, জেলা/মহানগর ও উপজেলা/থানা/পৌর (জেলা সদরে অবস্থিত পৌরসভা) আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, দলীয় সংসদ সদস্য, জেলা পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের দলীয় চেয়ারম্যান, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার দলীয় মেয়র এবং সহযোগী সংগঠনগুলোর কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা অংশগ্রহণ করেছেন। যাযাদি/ এসএম
Published on: 2023-08-06 09:09:12.480011 +0200 CEST