যায়যায়দিন
বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন

বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন

কিছুতেই থামছে না আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র্র করে সহিংসতার ঘটনা। মঙ্গলবারও দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর অস্থায়ী নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে জয়পুরহাট-২ আসনে নৌকার প্রার্থী হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনের দুটি নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া কক্সবাজার-১ আসনে কল্যাণ পার্টির প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের হাতঘড়ি প্রতীকের আরেকটি নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ক্যাম্পের পাহারাদার আবু সালেককে (৫০) দড়ি দিয়ে বেঁধে পাশের একটি ক্ষেতে ফেলে দিয়ে যায় তারা। তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে, জয়পুরহাট-২ (আক্কেলপুর, ক্ষেতলাল ও কালাই) আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনের দুটি নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আক্কেলপুর উপজেলার রায়কালী ইউনিয়নের খাঁপাড়া মোড় ও সেখান থেকে আধা কিলোমিটার দূরের শৃগালদীঘি গ্রামের নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়িয়ে দেওয়া হয়। রায়কালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন বলেন, ‘ইউনিয়নের খাঁপাড়া মোড় ও শৃগালদীঘি গ্রামে নৌকার দুটি নির্বাচনী ক্যাম্প ছিল। সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ১০টার দিকে ওই দুটি ক্যাম্প কে বা কারা পুড়িয়ে দিয়েছে। থানা-পুলিশকে ঘটনাটি জানানো হয়। পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল দুটি পরিদর্শন করেছে। পুলিশ খাঁপাড়া নির্বাচনী ক্যাম্প থেকে একটি মানিব্যাগ পেয়েছে। সেই মানিব্যাগে একজনের ছবি রয়েছে। আগুনে দুটি নির্বাচনী ক্যাম্পের পোস্টার, কাপড়সহ বিভিন্ন জিনিস পুড়েছে।’ প্রার্থী আবু সাঈদ আল মাহমুদ বলেন, ‘কে বা কারা করেছে, সেটি সবাই আন্দাজ করতে পারেন। আমরা খতিয়ে দেখছি। প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।’ আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহিনুর রহমান বলেন, ‘রায়কালী ইউনিয়নের আধা কিলোমিটার দূরত্বে নৌকা প্রতীকের দুটি নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়েছে। পুলিশ একটি ক্যাম্প থেকে মানিব্যাগ জব্দ করেছে, তবে এ ঘটনায় এখনো কেউ থানায় মামলা করেননি।’ এদিকে কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনে কল্যাণ পার্টির প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের হাতঘড়ি প্রতীকের আরেকটি নির্বাচনী ক্যাম্প মঙ্গলবার ভোরে পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। চকরিয়া উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের পুচ্ছালিয়াপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় দুর্বৃত্তরা ক্যাম্পের পাহারাদার আবু সালেককে (৫০) দড়ি দিয়ে বেঁধে পাশের একটি ক্ষেতে ফেলে যায়। সকালে তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আবু সালেক বলেন, ‘ভোর ৪টার দিকে ১৫ থেকে ২০ দুর্বৃত্ত ক্যাম্পে আগুন দেয়। এ সময় তারা আমাকে মারধর করে দড়ি দিয়ে বেঁধে পাশের মরিচ ক্ষেতে ফেলে দেয়। সকাল আটটার দিকে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।’ বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির দপ্তর সম্পাদক আল আমীন ভূঁইয়া বলেন, ‘একের পর এক আমাদের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন দেওয়া হচ্ছে। বিষয়টি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও ব্যবস্থা নিতে চিঠি দেওয়া হয়েছে।’ এর আগে গত রোববার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের খোঁজাখালী এলাকায় এই প্রার্থীর আরেকটি ক্যাম্পে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ক্যাম্পে আগুন ও আসবাবপত্র ভাঙচুরের দৃশ্য দেখা গেছে। কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, তা অনুসন্ধান করা হচ্ছে।’ যাযাদি/ এস
Published on: 2024-01-03 04:57:09.228615 +0100 CET