অর্থসূচক
খেলাপি গ্রুপের প্রতিষ্ঠানে আরও ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক

খেলাপি গ্রুপের প্রতিষ্ঠানে আরও ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক

খেলাপি গ্রুপের অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানে আরও ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক। তবে ইচ্ছাকৃত খেলাপি গ্রুপের প্রতিষ্ঠান এই সুবিধা পাবে না বলে জানিয়েছে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক। আগের নিয়মে কোনো গ্রুপের একটি প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি বা কোনো ব্যক্তি খেলাপি হলে ওই গ্রুপের কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি নতুন ঋণ পেত না। খেলাপি ঋণ নবায়ন করে নতুন ঋণ নিতে হতো। এখন থেকে কোনো গ্রুপের কোনো কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান বা পরিচালক খেলাপি হলেও ওই গ্রুপের খেলাপি কোম্পানি, পরিচালক বা প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্যরা ব্যাংক ও ফিন্যান্স কোম্পানি থেকে নতুন ঋণ নিতে পারবে। বুধবার (৩ এপ্রিল) বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে। সার্কুলারটি দেশের সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে। নির্দেশনাটি অবিলম্বে কার্যকর হবে বলেও নির্দেশনায় বলা হয়। সার্কুলারে বলা হয়, ব্যাংক কোম্পানি আইনে বলা হয়েছে- কোনো খেলাপি ঋণগ্রহীতার অনুকুলে কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান কোনোরূপ নতুন ঋণ সুবিধা প্রদান করবে না। তবে একই আইনের অন্য একটি ধারার বিধান অনুসারে পরস্পর স্বার্থসংশ্লিষ্ট গ্রুপভুক্ত কোনো খেলাপি ব্যক্তি বা ক্ষেত্রমতে প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি যদি ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা না হয় এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে যদি প্রতীয়মান হয় যে ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ার ক্ষেত্রে যুক্তিসংগত কারণ রয়েছে, তাহলে ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি খেলাপি হওয়ার কারণে ওই গ্রুপভুক্ত অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি খেলাপি বলে গণ্য হবে না। এরূপ প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্বানুমোদন সাপেক্ষে ঋণ সুবিধা দেওয়া যাবে মর্মে উল্লে­খ রয়েছে। ওই আইনের ক্ষমতাবলে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা সার্কুলার জারি করে বলেছে, গ্রুপভুক্ত কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা না হলে সেক্ষেত্রে গ্রুপভুক্ত অন্য ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে নতুন ঋণ সুবিধা দেওয়া যাবে। এক্ষেত্রে কিছু নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে। এগুলো হচ্ছে- কোনো ঋণগ্রহীতা খেলাপি হিসাবে চিহ্নিত হলে ওই খেলাপি ঋণগ্রহীতার অনুকূলে ব্যাংক কর্তৃক কোনোরূপ ঋণ সুবিধা দেওয়া যাবে না। তবে গ্রুপভুক্ত খেলাপি কোনো একটি প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা হিসাবে চিহ্নিত বা তালিকাভুক্ত না হলে ওই গ্রুপভুক্ত অন্য কোনো বা সব প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে পূর্বানুমোদন গ্রহণ সাপেক্ষে নতুন ঋণ সুবিধা দেওয়া যাবে। এছাড়া তফসিলি ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক গ্রুপভুক্ত কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে চূড়ান্তভাবে ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা হিসাবে তালিকাভুক্ত করার পর ওই তালিকাভুক্তির বিরুদ্ধে সংক্ষুব্ধ ঋণগ্রহীতা বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আপিল করলে ওই আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ঋণ সুবিধা দেওয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আবেদন করা যাবে না। গ্রুপভুক্ত প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে এরূপ ঋণ সুবিধা দেওয়ার পরবর্তী এক বছরের মধ্যে গ্রুপভুক্ত খেলাপি ঋণ হিসাবটি বিদ্যমান আইন বা নীতিমালা অনুসরণ করে সমন্বয় বা নিয়মিত করতে হবে। ওই সময়ের মধ্যে খেলাপি ঋণ হিসাব সমন্বয় বা নিয়মিত করতে ব্যর্থ হলে অথবা ঋণ হিসাব নিয়মিতকরণের পর পুনরায় খেলাপি হিসাবে চিহ্নিত হলে গ্রুপভুক্ত অন্যান্য প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে নতুন করে আর কোনো ঋণ সুবিধা দেওয়া যাবে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্বানুমোদন নেওয়ার লক্ষ্যে তফসিলি ব্যাংকের মাধ্যমে তাদের পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদন গ্রহণ সাপেক্ষে আবেদন করতে হবে এবং এক্ষেত্রে ঋণ সুবিধা দেওয়ার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের গৃহীত সিদ্ধান্তের সত্যায়িত কপি আবেদনপত্রের সঙ্গে দাখিল করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকে দাখিলকৃত আবেদনপত্রের সঙ্গে গ্রুপভুক্ত খেলাপি ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি খেলাপি হওয়ার কারণগুলো উল্লে­খ করে একটি প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে। ওই খেলাপি ঋণগ্রহীতা ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা কি না, তা নিশ্চিত হওয়ার লক্ষ্যে এ সংক্রান্ত হালনাগাদ সিআইবি রিপোর্ট সংযুক্ত করতে হবে। সিআইবিতে রিপোর্টিংয়ের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক নির্দেশনা জারির আগ পর্যন্ত ওই খেলাপি ঋণগ্রহীতা ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা নন মর্মে সংশ্লিষ্ট সব ঋণদাতা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রত্যয়নপত্র গ্রহণ করত তা সংযুক্ত করতে হবে। এতদ্বিষয়ে ব্যাংকের আবেদন নিষ্পত্তির লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক সময় সময় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বা দলিলাদি ব্যাংক কর্তৃক সরবরাহ করতে হবে। পূর্বানুমোদন দেওয়ার আগে বাংলাদেশ ব্যাংক গ্রুপভুক্ত খেলাপি ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি খেলাপি হওয়ার যুক্তিসংগত কারণ, ঋণ আবেদনকারী সংশ্লিষ্ট ঋণগ্রহীতার ব্যাংক হিসাব ও প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম এবং পরিদর্শন দলের বিবেচনায় প্রয়োজনীয় বিষয়াবলি পর্যালোচনার লক্ষ্যে সরেজমিন পরিদর্শন করা হবে। এরূপ পূর্বানুমোদন দেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে বলেও বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে। অর্থসূচক/এমএইচ
Published on: 2024-04-03 19:41:14.936438 +0200 CEST