The Business Standard বাংলা
গাজীপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নারী পোশাকশ্রমিক নিহত

গাজীপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নারী পোশাকশ্রমিক নিহত

পোশাকশ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ২৩ হাজার টাকা করার দাবিতে গাজীপুরের কোনাবাড়ী এলাকায় বিক্ষোভরত শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে বুধবার সকালে এক নারী পোশাকশ্রমিক নিহত হয়েছেন। নিহত পোশাকশ্রমিকের নাম আঞ্জুয়ারা খাতুন (৩০)। তিনি কোনাবাড়ীর ইসলাম গার্মেন্টসে সেলাই মেশিন অপারেটর পদে কাজ করতেন। গাজীপুর মেট্রোপলিটনের কোনাবাড়ী থানা সূত্র তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। গতকাল তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের জন্য মালিকপক্ষের প্রস্তাব করা ১২ হাজার ৫০০ টাকা ন্যূনতম মজুরিই চূড়ান্ত করে নিম্নতম মজুরি বোর্ড। তবে এ মজুরি বিক্ষোভরত শ্রমিকদের দাবির প্রায় অর্ধেক ফলে শ্রমিকেরা এতে সন্তুষ্ট হননি। বুধবার সকাল থেকেই গাজীপুরের কোনাবাড়ী, জরুন, বাইমাইল সহ বিভিন্ন এলাকায় শ্রমিকেরা বিক্ষোভ শুরু করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ গুলি ও কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে; পরে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ এসব এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেয়। পুলিশের ছোড়া কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেটের আঘাতে অন্তত ১০ জন শ্রমিক আহতের খবর মিলেছে। আহত শ্রমিকদের কোনাবাড়ী পপুলার, কোনাবাড়ী ক্লিনিক ও গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, ন্যূনতম মজুরি ২৩ হাজার টাকা করার দাবিতে গত সপ্তাহখানেক যাবত দেশের পোশাকশ্রমিকেরা আন্দোলন করে আসছেন। অন্যদিকে মালিকপক্ষ প্রথমে ন্যূনতম মজুরি ১০ হাজার ৪০০ টাকা দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল। এ নিয়ে গত ৩০ অক্টোবর আশুলিয়া, সাভার ও গাজীপুরের কয়েকটি শিল্পাঞ্চলে পুলিশ ও তৈরি পোশাক শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষে অন্তত দুইজন নিহত এবং প্রায় ৪০ জন আহত হয়। পরে ঢাকার আশুলিয়ায় ৩টি কারখানা ভাঙচুর ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মারধরের অভিযোগে আশুলিয়া থানায় পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করে সংশ্লিষ্ট কারখানা কর্তৃপক্ষ। মামলাগুলোতে উসকানি ও ভাঙচুরের অভিযোগে শ্রমিক সহ দেড় হাজার ব্যক্তিকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়। ২০১৩ সালে পোশাক খাতের ন্যূনতম মজুরি ৭৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৫ হাজার ৩০০ টাকা করেছিল নিম্নতম মজুরি বোর্ড। এরপর ২০১৮ সালে ন্যূনতম মজুরি তার চেয়ে প্রায় ৫১ শতাংশ বাড়িয়ে ৮ হাজার টাকা করা হয়।
Published on: 2023-11-08 08:18:29.060227 +0100 CET