The Business Standard বাংলা
নতুন নির্ধারিত সর্বনিম্ন মজুরিতেই কাজে যোগ দিন: পোশাক শ্রমিকদের প্রধানমন্ত্রী

নতুন নির্ধারিত সর্বনিম্ন মজুরিতেই কাজে যোগ দিন: পোশাক শ্রমিকদের প্রধানমন্ত্রী

পোশাক শ্রমিকদের জন্য সর্বনিম্ন যে মজুরি নির্ধারণ করা হয়েছে, তা নিয়েই তাদের কাজে ফেরার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর) গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকের তিনি এ আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমি গার্মেন্টস শ্রমিকদের বলব, যেটা [মজুরি] বাড়ানো হয়েছে সেটা নিয়েই তাদের কাজ করতে হবে। তারা কাজ করুক।' তিনি বলেন, 'যখনই সময় আসে, তাদের [পোশাক শ্রমিকদের] সবরকম সুবিধা আমরা করে দিই। কিন্তু তারা যদি সেটা না করে কারও প্ররোচনায় রাস্তায় নামে, তখন যারা তাদের উসকানি দিচ্ছে তারাই তাদের [শ্রমিকদের] লাশ ফেলবে। এরাই এমন অবস্থা সৃষ্টি করবে যে, তারা [শ্রমিকরা] চাকরি হারাবে, কাজ হারাবে, গ্রামে যেয়ে পড়ে থাকতে হবে।' প্রধানমন্ত্রী বলেন, কিছু মহল দেশের উন্নয়ন সহ্য করতে পারছে না; তারা আবার 'আগুনে পোড়ানোর খেলা' শুরু করেছে। যারা আগুন দেবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি। মঙ্গলবার (৮ নভেম্বর) মজুরি বোর্ড তৈরি পোশাক খাতের শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ৫৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৮ হাজার টাকা থেকে ১২ হাজার ৫০০ টাকা নির্ধারণ করে। কিন্তু সাড়ে ১২ হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরির এ সিদ্ধান্ত মানছেন না পোশাক শ্রমিকদের একটি বড় অংশ। ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার ৩৯০ টাকা করার দাবি জানিয়ে দেশের পোশাকশ্রমিকেরা আন্দোলন করে আসছেন। ২১ অক্টোবর থেকে এ দাবিতে তারা সড়কে নামেন। মালিকপক্ষ প্রথমে ন্যূনতম মজুরি ১০ হাজার ৪০০ টাকা দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল। এ নিয়ে গত ৩০ অক্টোবর আশুলিয়া, সাভার ও গাজীপুরের কয়েকটি শিল্পাঞ্চলে পুলিশ ও তৈরি পোশাক শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষে অন্তত দুইজন নিহত এবং প্রায় ৪০ জন আহত হয়। এরপর গত ১ নভেম্বর ন্যূনতম মজুরি প্রস্তাবিত ১০ হাজার ৪০০ টাকা থেকে আরও বাড়াতে রাজি হন কারখানা মালিকেরা। মঙ্গলবার বৈঠকে বসে অবশেষে নতুন সর্বনিম্ন মজুরি চূড়ান্ত করে মজুরি বোর্ড। ২০১৩ সালে পোশাক খাতের ন্যূনতম মজুরি ৭৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৫ হাজার ৩০০ টাকা করেছিল নিম্নতম মজুরি বোর্ড। এরপর ২০১৮ সালে ন্যূনতম মজুরি তার চেয়ে প্রায় ৫১ শতাংশ বাড়িয়ে ৮ হাজার টাকা করা হয়।
Published on: 2023-11-09 16:28:22.902421 +0100 CET