The Business Standard বাংলা
বাজেট ২০২৩-২৪ | মধ্যবিত্তের স্বস্তির অবকাশ নেই, জীবনযাপনের ব্যয় আরো বাড়বে

বাজেট ২০২৩-২৪ | মধ্যবিত্তের স্বস্তির অবকাশ নেই, জীবনযাপনের ব্যয় আরো বাড়বে

মূল্যস্ফীতির লাগামহীন চাপে জীবনযাপনের ব্যয় বেড়েই চলেছে প্রতিনিয়ত। এতে নিম্ন ও সীমিত আয়ের মানুষের ভোগান্তি চরমে। মধ্যবিত্তরাও নেই সুহালে। তাই বাজেটের দিকে চোখ ছিল অনেকের। আশা করেছিলেন, কিছুটা স্বস্তির উদ্যোগ থাকবে। কিন্তু, তাদের সে আশা তো পূরণ হয়ইনি, বরং জিডিপিতে করের অবদান (কর-জিডিপি) অনুপাত বাড়ানোর অংশ হিসেবে অর্থমন্ত্রী নিত্যব্যবহার্য পণ্যের ওপর করারোপের কথা জানিয়েছেন বাজেট প্রস্তাবে। মধ্যবিত্তের জীবনযাত্রার ব্যয় তাতে আরও বাড়বে বৈ কমবে না। অবশ্য, ব্যক্তিশ্রেণীর করমুক্ত আয়ের সীমা ৩ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ৩ লাখ টাকার করার কথাও বলা হয়েছে প্রস্তাবিত বাজেটে। এভাবে অর্থমন্ত্রী মধ্যবিত্তকে কিছুটা স্বস্তি দেয়ার চেষ্টা করেছেন। বাজেট বক্তৃতায় মুদ্রাস্ফীতির কারণে করদাতাদের প্রকৃত আয় হ্রাস পাওয়ায় করমুক্ত আয়সীমা বৃদ্ধির প্রস্তাব করে তিনি বলেন, এতে ব্যক্তি করদাতাদের করভার লাঘবের ফলে তারা নিয়মিতভাবে কর পরিশোধে আরও উৎসাহিত হবেন বলে আশা করা যায়। এদিকে মধ্যবিত্তদের করভার লাগবে ধনীদের সারচার্জ বা সম্পদ কর-এ ছাড় দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী! তাতে মধ্যবিত্তদের সুবিধা কোথায়, তা বোধগম্য হয়নি। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, বিত্তশালী ব্যক্তি করদাতাদের কাছ থেকে নিট সম্পদের ভিত্তিতে সারচার্জ আদায় করা হয়। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে বিধানটি কার্যকর আছে। ব্যক্তি করদাতাদের সারচার্জ সমাজের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে সাথে আয় ও সম্পদের সুষম বন্টন নিশ্চিত করে। সারচার্জ আহরণের বিধান পরিপালন সহজ করতে এবং মধ্যবিত্তদের করভার লাঘবে সারচার্জের ন্যূনতম সীমা ৩ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪ কোটি টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করেন তিনি। ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাট হারে। এতে কলম, তৈজষপত্র, রূপচর্চাসামগ্রী, রান্নার এলপি গ্যাস, মোবাইল ফোন থেকে শুরু করে স্বর্ণালংকার, বাড়ির নির্মাণসামগ্রী সিমেন্টের দাম বাড়বে। এমনকী কলম উৎপাদনে ভ্যাট অব্যাহতি ছিল, সেখানে ১৫ শতাংশ ভ্যাট বসানো হয়েছে। এতে বাড়বে শিক্ষা উপকরণ কলমের দাম। দেশে গ্যাস সংকটের মধ্যে আবাসিক গ্রাহকের রান্নার কাজে এলপি গ্যাসের ব্যবহার বেড়েছে। রাজস্ব আয় বাড়াতে অর্থমন্ত্রী এলপি গ্যাসের উৎপাদন পর্যায়ে ভ্যাট ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ৭ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছেন। একইসঙ্গে সিলিন্ডার বানানোর কাজে ব্যবহৃত স্টিল ও ওয়েল্ডিংওয়্যার আমদানিতে শুল্ক আরোপ হয়েছে। ফলে এলপি গ্যাসের দাম বাড়তে পারে। সিগারেটের বদভ্যাস কমানোর আরেকটি উপলক্ষ হতে পারে এবারের বাজেট। সাথে টান পড়বে চায়ের পেয়ালাতেও। এবার সিগারেট, কফিমেটের দাম বাড়বে। প্রতি অর্থবছরই সিগারেটের মূল্যস্তর বাড়ায় জাতীয় রাজস্ব  বোর্ড (এনবিআর), এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ফলে বাজারে সিগারেটের প্যাকেটের দাম বাড়বে। কফিমেট আমদানিতে ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বসানো হয়েছে। তাই এ পণ্যটিরও দাম বাড়ার সম্ভাবনা আছে। বাসা-বাড়িতে ব্যবহৃত প্লাস্টিকের তৈরি সব ধরনের টেবিলওয়্যার, কিচেনওয়্যার, গৃহস্থালি সামগ্রী উৎপাদনে ৫ শতাংশ ভ্যাট ছিল, এটি বাড়িয়ে ৭ দশমিক ৫০ শতাংশ করা হয়েছে। একইভাবে অ্যালুমিনিয়ামের তৈরি গৃহস্থালী সামগ্রী ও  তৈজষপত্রের ভ্যাট হার বাড়ানো হয়েছে। এ কারণে প্লাস্টিকের থালা-বাসন, অ্যালুমিনিয়িমের হাড়ি-পাতিলের দাম বাড়তে পারে। মাইক্রোওয়ভে ওভেনের আমদানি শুল্ক বাড়ানো হয়েছে, বিধায় বিদেশে ওভেনের দাম বাড়তে পারে। সুস্থ থাকতে অনেক মধ্যবিত্ত খেঁজুর ও বাদাম খান। সেখানেও নজর র্অথমন্ত্রীর। স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদন বাড়াতে কাজু বাদাম আমদানিতে শুল্ক বাড়ানো হয়েছে। তাই আমদানি করা কাজু বাদামের দাম বাড়তে পারে। এছাড়াও ফল-বাদাম আমদানিতে ২০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। পাশাপাশি শুল্ক ফাঁকি রোধে তাজা ও শুকনা খেজুর আমদানিতে ২৫ শতাংশ শুল্কের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। এতে খেজুরের দাম বাড়ার সম্ভাবনা আছে। আমদানিকৃত পনির-দই এর দাম বাড়বে। অনেক মধ্যবত্তি শখের বশে প্রতিবছর মুঠোফোন কিনে থাকেন। রাজস্ব আদায় বাড়াতে স্থানীয় উৎপাদন ও সংযোজন পর্যায়ে মোবাইল ফোনের ভ্যাট বাড়ানো হয়েছে। তাই মোবাইল ফোনের দাম বাড়তে পারে। ঈদ, উৎসব-পার্বন বা ঘুরতে মধ্যবিত্তরা যানজট এড়াতে বিমানযোগে দেশের এক জেলা অন্য জেলায় যান। নতুন বাজেটে আকাশপথে দেশের এক জেলা থেকে অন্য জেলায় যেতে ২০০ টাকা ভ্রমণকর দিতে হবে, এতদিন দেশের অভ্যন্তরে ভ্রমণ কর দিতে হতো না। এতে বেড়ানোর খরচ বাড়বে। এছাড়াও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যান অনেকে, সেখানেও বাড়বে ব্যয়। কারণ বাজেটে বিমান টিকিটের ওপর ভ্রমণ কর বাড়ানো হয়েছে। বর্তমানে স্থলপথে বিদেশ গমনে ৫০০ টাকা ও নৌপথে ৮০০ টাকা কর বহাল রয়েছে, এটি বাড়িয়ে এক হাজার টাকা করা হয়েছে। আকাশপথে সার্কভুক্ত দেশ ভ্রমণে এক হাজার ২০০ টাকা কর ছিল, এটি বাড়িয়ে দুই হাজার টাকা করা হয়েছে। বিদেশ ভ্রমণে তিন হাজার টাকা কর ছিল, এটি চার হাজার টাকা করা হয়েছে। উত্তর আমেরিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ, আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, চীন, জাপান, হংকং, উত্তর কোরিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, ভিয়েতনাম, লাওস, কম্বোডিয়া ও তাইওয়ান ভ্রমণে যাত্রীপ্রতি চার হাজার টাকা ভ্রমণ কর ছিল, এটি বাড়িয়ে ছয় হাজার টাকা করা হয়েছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির এই সময়ে খরচ বাড়ার পরেও অনেকে টাকা জমিয়ে স্ত্রী অথবা ভবিষ্যৎ সঞ্চয়ের কথা মাথায় রেখে স্বর্ণালংকার কেনার পরিকল্পনা করেন। নতুন বাজেটে স্বর্ণালংকারের দাম বাড়তে পারে। কারণ ব্যাগেজ রুলে বড় সংশোধন আনা হয়েছে। আগে ভরিপ্রতি স্বর্ণের বার আমদানিতে ২ হাজার টাকা শুল্ক দিতে হতো, এখন সেটি ৪ হাজার টাকা করা হয়েছে। তাও আবার একটির বেশি স্বর্ণের বার আনলে তা বাজেয়াপ্ত করা হবে। এ কারণে চাহিদার তুলনায় জোগান কম থাকতে পারে। বিধায় স্বর্ণালংকারের দাম বাড়ার সম্ভাবনা আছে। বাজেটে সব ধরনের টিস্যুর দাম বাড়তে পারে। কিচেন টাওয়েলসহ টয়লেট টিস্যু, ন্যাপকিন টিস্যু, ফেসিয়াল টিস্যু/পকেটে টিস্যু ও পেপার টাওয়াল উৎপাদনে ৫ শতাংশ ভ্যাট ছিল, এটি বাড়িয়ে ৭ দশমিক ৫০ শতাংশ করা হয়েছে। এতে টিস্যু পেপারের দামও বাড়তে পারে।
Published on: 2023-06-01 17:36:37.008079 +0200 CEST