The Business Standard বাংলা
২০২২ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের মোট আমানত রেকর্ড ৯৩.৭ শতাংশ কমেছে

২০২২ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের মোট আমানত রেকর্ড ৯৩.৭ শতাংশ কমেছে

Bangladeshis' deposits in Swiss banks ( https://infogram.com/1e8d6066-1915-4cd2-a27d-4a82d34e0a4d ) Infogram ( https://infogram.com ) ২০২২ সালে সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থজমার পরিমাণে কমে ৫৫.২ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ বা প্রায় ৫৪০ কোটি টাকায় নেমে এসেছে। আগের বছরের চেয়ে মোট আমানত কমেছে ৯৩.৭ শতাংশ বা ৮৭১.১ মিলিয়ন ফ্রাঁ। ব্যক্তি ও অন্যান্য ব্যাংকের আমানত, এ দুই মিলিয়ে মোট আমানতের হিসাব করা হয়। মোট আমানত কমলেও, ব্যক্তি পর্যায়ের আমানতের পরিমাণ ৩৫.৩ শতাংশ বেড়ে ৩৫.৪ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ বা ৩৪৮.৪ কোটি টাকায় দাঁড়ায়। যা আগের বছরে ছিল ২৬.৩ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ। তবে সুইস ব্যাংকে মোট আমানত কমার কারণ হলো- বাংলাদেশি ব্যাংকের রাখা আমানতে ৯৭.৭ শতাংশ পতন। ২০২২ সালে বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো থেকে সুইস ব্যাংকে ১৯.৩৪ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ'র সমপরিমাণ অর্থ আমানত রাখে। এক বছর আগে যা ছিল ৮৪৪.৫ মিলিয়ন ফ্রাঁ। আজ বৃহস্পতিবার (২২ জুন) বার্ষিক ব্যাংকিং তথ্য প্রকাশের অংশ হিসেবে ২০২২ সালের আমানতের পরিমাণ জানিয়েছে সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি)। মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহবুবুর রহমান দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে বলেন, ২০২২ সালে বৈদেশিক অর্থ পরিশোধের প্রবল চাপ থাকার কারণেই সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের আমানত কমেছে। গেল বছর প্রতিমাসে ৮-৯ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক অর্থ পরিশোধ করতে হয়েছে দেশের ব্যাংক ও ব্যবসায়ীদের। তিনি জানান, সাধারণত অর্থ পরিশোধের জন্যই সুইস ব্যাংকের হিসাবে আমাদের দেশের ব্যাংকের অর্থ রাখা হয়। কিন্তু, গত বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে চরম ডলার সংকটের ফলে ব্যাংকগুলো তাদের সমস্ত উপলদ্ধ তহবিল থেকে ডলার সংগ্রহ করে। কারণ, তখন সুইস ব্যাংকে আমানত রাখার চেয়ে মূল্য পরিশোধের দায় মেটানোই প্রধান বিষয় হয়ে ওঠে। ব্যক্তি পর্যায়ে আমানত ৩৫ শতাংশ বাড়ার কারণ হচ্ছে, মানুষের বিদেশযাত্রার প্রবণতাও লক্ষণীয়ভাবে বেড়েছে। এক্ষেত্রে তারা বিদেশি ব্যাংকে অর্থ রাখতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। তবে মোট আমানতের তুলনায় ব্যক্তি পর্যায়ের যেটুকু বেড়েছে তাকে বেশ নিম্নই বলা চলে। মোট আমানতের হিসাবে, দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর মধ্যে সুইস ব্যাংকে সবচেয়ে বেশি জমা রয়েছে ভারতীয়দের অর্থ। তবে সেটাও ১১.২ শতাংশ কমে ৩,৪০০ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ হয়েছে। সুইস ব্যাংকে মোট আমানতের হিসাবে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে পঞ্চম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। এই অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে এক বছরে আমানত পতনের সর্বোচ্চ রেকর্ডও বাংলাদেশের। এরপর আফগানিস্তানের ৭৭.৫ শতাংশ এবং পাকিস্তানের ৪৫ শতাংশ কমেছে বার্ষিক আমানত। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সুইস ব্যাংকে নেপাল থেকে আমানতের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। ২০২২ সালে যা ৬২ শতাংশ বেড়ে ৪৮২ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঁ'তে উন্নীত হয়েছে।
Published on: 2023-06-22 17:20:26.426174 +0200 CEST