The Business Standard বাংলা
বিদ্রোহীদের আক্রমণে মিয়ানমারের ১৪ সীমান্তরক্ষী পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন

বিদ্রোহীদের আক্রমণে মিয়ানমারের ১৪ সীমান্তরক্ষী পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন

মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ১৪ সদস্য পালিয়ে বান্দরবোনে আশ্রয় নিয়েছেন। দেশটির বিদ্রোহী দল আরাকান আর্মির সঙ্গে সংঘর্ষের মধ্যে সীমান্ত পেরিয়ে ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রুতে অবস্থিত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ফাঁড়িতে আশ্রয় নেন তারা। আজ, রবিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিজিবির হেডকোয়ার্টার থেকে তথ্যটি নিশ্চিত করা হয়েছে। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সরকারের এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, "আজ সকালে বিজিপি সদস্যরা বাংলাদেশে প্রবেশ করে তাদের অস্ত্র বিজিবির কাছে সমর্পণ করেছে।" বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, "সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবেন তুমব্রু বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডিং অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম চৌধুরী। বিকেলে তুমব্রু প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।" ঘুমদুম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজের বরাত দিয়ে লামা ইউনিয়ন নির্বাহী অফিসার সন্তুনু কুমার দাস বলেন, "বিদ্রোহীদের হামলার শিকার হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে বিজিপির ১৪ সদস্য। আমরা সকাল থেকে গোলাগুলি এবং রক ফায়ারিংয়ের শব্দ শুনতে পাচ্ছি।" বিজিবির এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা জানান, আজ (রবিবার) সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটের দিকে বিজিপি সদস্যরা বাংলাদেশে প্রবেশ করে। তিনি বলেন, "পদ্ধতি অনুযায়ী আমরা তাদের নিরস্ত্র করেছি। তারা এখন আমাদের হেফাজতে আছে। পরবর্তী সিদ্ধান্তের জন্য আমরা সরকার ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। আমরা সীমান্তে সতর্ক আছি।" গতকাল, শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) থেকে সীমান্ত শিবির দখলকে কেন্দ্র করে বিদ্রোহী দলগুলো মিয়ানমারের সামরিক জান্তা বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে। এক্ষেত্রে ক্রমাগত গুলি, মর্টার শেলিং এবং রকেট লঞ্চার বিস্ফোরিত হচ্ছে। গুলিতে এক বাংলাদেশি আহত হয়েছেন। বাংলাদেশি সীমান্তের এক বাসিন্দা বলেন, "সকাল ৮টা থেকে প্রচণ্ড গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। অনেক ভয়ে আছি। কী হবে জানি না।"
Published on: 2024-02-04 09:02:41.511385 +0100 CET