The Business Standard বাংলা
শাস্তি কমিয়ে সড়ক পরিবহন (সংশোধন) আইনের খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন মন্ত্রিসভার

শাস্তি কমিয়ে সড়ক পরিবহন (সংশোধন) আইনের খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন মন্ত্রিসভার

ড্রাইভিং লাইসেন্সের অনিয়মসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধের জন্য চালক ও তার সহকারীদের জেল-জরিমানার পরিমাণ কমিয়ে সড়ক পরিবহন (সংশোধন) আইন, ২০২৪ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। আজ বুধবার (১৩ মার্চ) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সড়ক পরিবহন আইনের তিনটি ধারার অপরাধ অজামিনযোগ্য ছিল। এখন একটি ধারার অপরাধকে অজামিনযোগ্য রেখে অন্য দুটিকে জামিনযোগ্য করা হয়েছে। আইনের ১২টি ধারায় অপরাধের শাস্তি কমানো হয়েছে। আটটিতে জরিমানার পরিমাণ কমানোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা পরিষদের ২৬তম সভায় আইনটি সংশোধনের সিদ্ধান্ত হয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এজন্য তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে, অংশীজনদের সাথে আলোচনার পর কমিটি এসব সংশোধনী আনার প্রস্তাব দিয়েছে। যাতে নীতিগত সায় দিয়েছে মন্ত্রিসভা। মাহবুব হোসেন জানান, ড্রাইভিং লাইনেন্স প্রস্তুত সংক্রান্ত অপরাধ করলে এতদিন বিদ্যমান আইনের ৬৯ ধারায় ২ বছর জেল ও ৫ লাখ টাকা জরিমানার বিধান ছিল, আইনের সংশোধনীতে তা কমিয়ে ২ বছর জেল ও ৩ লাখ টাকা করা হয়েছে। লাইসেন্স বাতিলের পরেও যানবাহন চালালে বর্তমান আইনে ৩ মাস কারাদণ্ড ও ২৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। তার বদলে ৩ মাস কারাদণ্ড ও ১৫ হাজার টাকা জরিমানার প্রস্তাব করা হয়েছে। আইনের ৭১ ধারার সংশোধনীতে পরিবহন সুপারভাইজারদের লাইসেন্স নেওয়াও বাধ্যতামূলক করার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া বিদ্যমান আইনের ৮০ ধারায় ভাড়ার চার্ট না দেখালে বা বেশি ভাড়া নিলে এত দিন ১ মাস জেল বা ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হতো। দুটো অপরাধ একসঙ্গে করলে এতদিন এই শাস্তি দেওয়া হত। এখন চার্ট প্রদর্শন না করলে বা বেশি ভাড়া দাবি করলে এই সাজা দেওয়া হবে– খসড়ায় এ প্রস্তাব রয়েছে ।
Published on: 2024-03-13 16:13:13.216914 +0100 CET